ক্ৰেডিট না কি ডেবিট কার্ড : কোনটা সেরা ?




ডেবিট কার্ড না কি ক্রেডিট কার্ড সেরা - এ বিতর্কের যেন কোনো শেষ নেই ! তবে এই উভয় ধরণের প্লাস্টিকের অর্থ আমাদের জীবনে গুরুত্বপূর্ণ ও অপরিহার্য অংশ হয়ে গেছে। এগুলো আমাদের জীবনকে এতটাই সহজ ও ঝামেলাহীন করেছে যে, এখন দৈনিক লেনদেনে নগদ টাকা বহন বা ব্যবহার করা যেন অতীতের কোন বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।
 
আপনি কি দ্বিধাদ্বন্দ্বে ভুগছেন যে নিজের জন্য ক্রেডিট না কি ডেবিট কার্ড বেছে নিবেন ? তবে আসুন আপনাকে উভয় কার্ডের সুবিধা-অসুবিধা সম্পর্কে জানিয়ে দেই। এতে করে সবকিছু বিবেচনা করে আপনার জন্য সঠিক কার্ড বেছে নেয়া সহজ হবে।
 
ডেবিট কার্ডের সুবিধা 
ডেবিট কার্ড আমাদের সেভিংস বা কারেন্ট একাউন্টের সাথে যুক্ত থাকে। ডেবিট কার্ডের সুবিধাসমূহ হল -
 
• ফি : যখন আপনি আপনার সমস্ত লেনদেনের জন্য ডেবিট কার্ড ব্যবহার করেন, আপনাকে কোনো প্রকার বার্ষিক ফি পরিশোধের ঝামেলায় যেতে হয় না। ডেবিট কার্ড সব সময়ই যেকোন প্রকার ফি থেকে মুক্ত। এবং তা কোন রকম চার্জ বহন করে না যদি না আপনি আপনার সেভিংস একাউন্টে ওভারড্রাফট সুবিধা ভোগ করেন।
 
• নিয়ন্ত্রিত খরচ : ডেবিট কার্ড আপনার খরচসমূহকে নিয়ন্ত্রণ করে। এটা আপনাকে অতিরিক্ত খরচের সুযোগ দেয় না যদি না আপনার সেভিংস বা কারেন্ট একাউন্টে যথেষ্ট পরিমাণ অর্থ থাকে। তবে কিছু ব্যাংক বিশেষ পরিস্থিতির অধীনে একটি ওভারড্রাফট লিমিটের অনুমতি দেয়, কিন্তু এজন্য আপনাকে চার্জ প্রদান করতে হবে।
 
• সুদমুক্ত : যেহেতু আপনাকে কোন ব্যালেন্স অ্যামাউন্ট বহন করতে হয় না, তাই ডেবিট কার্ড কেনাকাটার উপর কোন সুদ পরিশোধ করতে হবে না। অর্থাৎ আপনার সকল প্রকার লেনদেন সুদ মুক্ত থাকবে।
 
• চুরির সম্ভাব্যতা কম : ডেবিট কার্ডে চুরির সম্ভাব্যতা খুব সীমিত। অধিকাংশ কার্ডে অর্থের পরিমাণের উপর একটি সীমা নির্ধারণ করা হয় (যতটুকু একজন কার্ড হোল্ডার তুলতে পারবেন)। এছাড়াও কার্ডের পিন (PIN ) একটি ডেবিট কার্ডের সার্বিক নিরাপত্তা বাড়ায়।
 
ডেবিট কার্ডের অসুবিধা
 
• রিওয়ার্ড সুবিধা কম : আপনার ডেবিট কার্ডের লেনদেনে অর্জিত রিওয়ার্ড পয়েন্ট সুবিধাগুলো ক্ৰেডিট কার্ডের তুলনায় অনেক কম হয়। বেশিরভাগ ডেবিট কার্ড দৈনিক লেনদেনের জন্য কোন ধরণের রিওয়ার্ড পয়েন্ট প্রদান করে না।
 
• ক্রেডিট স্কোর সংক্রান্ত কোন সাহায্য করে না: যদি আপনার ক্রেডিট হিস্ট্রি যতটুকু কাম্য তারচেয়ে কম হয়, তবে কিন্তু ডেবিট কার্ডে অর্থ খরচ করে আপনি ভালো ক্রেডিট স্কোর গড়ে তুলতে পারবেন না। মনে রাখবেন, লোন আবেদনের ক্ষেত্রে একটি খারাপ ক্ৰেডিট স্কোর অতিরিক্ত সমস্যার উদ্ভব ঘটায়।
 
• ব্যালেন্স চেক : যদি আপনি ঘন ঘন ডেবিট কার্ড ব্যবহার করেন, তবে আপনাকে নিয়মিত নিজের একাউন্ট ব্যালেন্স চেক করতে হবে। যেহেতু অতিরিক্ত ব্যয়ের ক্ষেত্রে ওভারড্রাফট চার্জ বহন করতে হয়, সেজন্য আপনি অধিক পরিমাণে ব্যয় করতে পারবেন না।
 
ক্রেডিট কার্ডের সুবিধা
ক্রেডিট ও ডেবিট কার্ডকে অভিন্ন মনে হলেও এই দুটির মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে। এবার আসুন জেনে নেই ক্রেডিট কার্ডের সুবিধাগুলো সম্পর্কে -
 
• রিওয়ার্ড পয়েন্ট : যখন আপনি ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে ব্যয় করেন, তখন ক্যাশব্যাক পয়েন্ট বা অতিরিক্ত রিওয়ার্ড পয়েন্টের মতো লাভজনক অপশন অর্জন সম্ভব। এই রিওয়ার্ড পয়েন্ট পরবর্তীতে আদায় করা যাবে।
 
• ক্রেডিট স্কোর : আপনার ক্রেডিট হিস্ট্রি যদি কাম্য মান অনুযায়ী না হয়, তবে ক্ৰেডিট স্কোর বাড়ানোর সবচেয়ে বুদ্ধিমান উপায় হল - ক্রেডিট কার্ড ঘন ঘন ব্যবহার করতে হবে। সময়মত বিল পরিশোধ আপনার স্কোর বহুলাংশে উন্নত করতে সাহায্য করবে।
 
• বর্ধিত ওয়ারেন্টি : অধিকাংশ ক্রেডিট কার্ডে বিভিন্ন পণ্যের ক্ষেত্রে উৎপাদনের ওয়ারেন্টির বাইরে, আরো দীর্ঘকালীন ওয়ারেন্টি সুবিধা প্রদান করা হয়।
 
• উন্নত সুরক্ষা : প্রতারণা, চুরি কিংবা ডুপ্লিকেট চার্জের ক্ষেত্রে ক্রেডিট কার্ডে নিরাপত্তা বা সুরক্ষার পরিমাণ অনেক বেশি। তাছাড়া আপনার ক্রেডিট কার্ড যদি চুরি হয়ে যায়, তবে সে কার্ডের মাধ্যমে যেকোন লেনদেনের জন্য আপনার কোন ধরণের দায় থাকবে না।
 
ক্রেডিট কার্ডের অসুবিধা
 
• অত্যাধিক ব্যয় : ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে কেনাকাটায় সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হল নিজের খরচকে নিয়ন্ত্রণ করা। ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারে অধিক ব্যয়ের একটা ঝোঁক তৈরী হতে পারে, যেহেতু আপনি জানেন যে - পরবর্তী কোন সময়ে আপনি টাকা পরিশোধ করতে পারবেন। তবে মনে রাখবেন, এজন্য আপনাকে অবশ্যই সুদ পরিশোধ করতে হবে।
 
• বার্ষিক ফী : অধিকাংশ ক্রেডিট কার্ডে বিলম্ব ফি, ব্যালেন্স ট্রান্সফার ফি বা ওভারড্রাফট ফির আকারে কিছু বার্ষিক বা লুকায়িত ফি থাকে। ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারে আপনাকে অবশ্যই এ ফি গুলো পরিশোধ করতে হয়।
 
• ক্রেডিট স্কোর সমস্যা : ক্ৰেডিট কার্ড লেনদেনে আপনি যদি মাসিক পেমেন্ট (ইএমআই) সঠিকভাবে পরিশোধ করতে না পারেন, তবে তা আপনার ক্রেডিট স্কোরে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। এছাড়াও, মোট বকেয়া পরিশোধ ব্যতীত যদি ক্ৰেডিট কার্ড বন্ধ করে দেন, তবে সেটাও আপনার ক্রেডিট স্কোরে অতিশয় খারাপ প্রভাব রাখবে।
 
• লেনদেনের উপর উচ্চ হারের ফি : ডেবিট কার্ডের চেয়ে ক্ৰেডিট কার্ডে লেনদেনের ফি অনেক বেশি। আর সেজন্য আপনি যদি ডেবিট কার্ডের পরিবর্তে ক্ৰেডিট কার্ড ব্যবহার করেন, তবে আপনাকে অধিক সেবা কর পরিশোধ করতে হবে।
 
অন্য সব কিছুর মত ডেবিট এবং ক্ৰেডিট কার্ডে সুবিধার পাশাপাশি অল্প কিছু অসুবিধাও রয়েছে। এখন আপনাকে নিজের খরচের অভ্যাস ও মাসিক প্রয়োজনের উপর ভিত্তি করে ক্রেডিট অথবা ডেবিট কার্ড বেছে নিতে হবে।
Imma Emma এর ছবি

About the Author

About: 

আমি ইমা। লেখালেখি নিয়ে কাজ করতে ভালো লাগে। তাই অবসরে লেখালেখির একটু চেষ্টা করি।